করোনায় প্রকৃত আক্রান্তের সংখ্যা আড়াই কোটি!

0 60

আন্তর্জাতিক প্রতিবেদকঃ

প্রানঘাতি করোনা বিপর্যস্ত পুরো বিশ্ব। চিনের উহান থেকে ছড়িয়ে পরা এ ভাইরাস বর্তমানে সেখানে নিয়ন্ত্রিত থাকলেও বিশ্বব্যাপি করোনা ভাইরাস ব্যাপক তান্ডব চালাচ্ছে।

ইউরোপের ইতালি ও স্পেন কে শশ্মানে পরিনত করেছে করোনা, বাদ যায়নি বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর রাষ্ট্র আমেরিকাও।

ওয়াল্ডওমিটার ওয়েবসাইটের সর্বশেষ তথ্য মতে বিশ্বের মোট ২০৯ টি দেশে করোনা ভাইরাস সংক্রামন ধরা পরেছে। এতে মোট আক্রান্ত হয়েছে ১৬ লাখ ৭ হাজার ৯১২ জন। মারা গেছে ৯৫ হাজার ৮১৩ জন। আর সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৩ লাখ ৫৭ হাজার ১৮০ জন।

.
তবে জার্মানির দুই বিজ্ঞানী বলছেন ভিন্ন কথা। তাদের দাবি করোনায় এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছে মোট আড়াই কোটি মানুষ! জার্মানির গটিনজেন ইউনিভার্সিটির দুই গবেষকের দাবি, আমরা এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্তের যে সংখ্যা পেয়েছি তা মোট কোভিড-১৯ আক্রান্তের মাত্র ৬ শতাংশ। অর্থাৎ, বাকি ৯৪ শতাংশ করোনা রোগীর হিসাব আমাদের জানার বাইরে।
ওয়ার্ল্ডওমিটার ওয়েবসাইট বলছে, যুক্তরাজ্যে এ পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৬৫ হাজার ৭৭ জন। তবে জার্মানির এই দুই গবেষকের দাবি, এটা দেশটির মোট আক্রান্তের মাত্র ১ দশমিক ২ শতাংশ। অর্থাৎ, দেশটির ৯৮ দশমিক ৮ শতাংশ কোভিড-১৯ এ হিসাবের বাইরে রয়েছেন। এই দুই গবেষকের ভাষ্য, ‘প্রকৃতপক্ষে যুক্তরাজ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৫ মিলিয়নের মতো (৫০ লাখ)। ’

গবেষকরা আরও বলেছেন, ৩১ মার্চ পর্যন্ত ইতালি, স্পেন ও যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় আক্রান্তের যে সংখ্যা দেখানো হয়েছে, তা হল প্রকৃত সংখ্যার যথাক্রমে ৩ দশমিক ৫, ১ দশমিক ৭ এবং ১ দশমিক ৬ শতাংশ।

অথচ, ইতালিতে এ পর্যন্ত ১ লাখ ৪৩ হাজার ৬২৬, স্পেনে ১ লাখ ৫৩ হাজার ২২২ এবং যুক্তরাষ্ট্রে ৪ লাখ ৬৮ হাজার ৮৮৭ জন আক্রান্ত হয়েছেন করোনায়।

- Advertisement -

জার্মানির এই দুই গবেষকের দাবি অনুযায়ী, প্রকৃতপক্ষে বর্তমানে মহামারি কোভিড-১৯ আক্রান্তের সংখ্যা ২৬ মিলিয়ন বা ২ কোটি ৬০ লাখ।

যুক্তরাজ্যভিত্তিক জনস্বাস্থ্য ও চিকিৎসা সাময়িকী ল্যানসেট-এ প্রকাশিত এক গবেষণা নিবন্ধে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে এই চমকপ্রদ তথ্য দিয়েছেন জার্মানির বিজ্ঞানী অধ্যাপক সেবাস্তিয়ান ভলমার ও ড. ক্রিশ্চিয়ান বোমার।

এই দুই বিজ্ঞানীর তথ্যমতে, জার্মানিতে এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্তের যে সংখ্যা (১ লাখ ১৮ হাজার ২৩৫) পাওয়া গেছে, আসলে তা প্রকৃত সংখ্যার মাত্র ১৫ দশমিক ৬ শতাংশ।

সেবাস্তিয়ান ভলমার ও ড. ক্রিশ্চিয়ান বোমা বলছেন, করোনা আক্রান্ত অনেক রোগীর ক্ষেত্রে কোনো উপসর্গই প্রকাশ পায় না। আবার পেলেও তা খুবই সামান্য। আর এ কারণেই করোনা রোগীর প্রকৃত তথ্য পাচ্ছে না দেশগুলোর স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ। আর দেশগুলো থেকে যে তথ্য পাওয়া যাচ্ছে তা তথ্যপূর্ণ নয়।

এই অবস্থায় দেশগুলোর স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষকে করোনা রোগী যাচাইয়ের ক্ষেত্রে অত্যন্ত সতর্কতা অবলম্বনের পরামর্শ দিয়েছেন বিজ্ঞানী অধ্যাপক ভলমার ও ড. ক্রিশ্চিয়ান বোমার।

এই দুই বিজ্ঞানীর তথ্যমতে, জার্মানিতে এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্তের যে সংখ্যা (১ লাখ ১৮ হাজার ২৩৫) পাওয়া গেছে, আসলে তা প্রকৃত সংখ্যার মাত্র ১৫ দশমিক ৬ শতাংশ।

সেবাস্তিয়ান ভলমার ও ড. ক্রিশ্চিয়ান বোমা বলছেন, করোনা আক্রান্ত অনেক রোগীর ক্ষেত্রে কোনো উপসর্গই প্রকাশ পায় না। আবার পেলেও তা খুবই সামান্য। আর এ কারণেই করোনা রোগীর প্রকৃত তথ্য পাচ্ছে না দেশগুলোর স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ। আর দেশগুলো থেকে যে তথ্য পাওয়া যাচ্ছে তা তথ্যপূর্ণ নয়।
এই অবস্থায় দেশগুলোর স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষকে করোনা রোগী যাচাইয়ের ক্ষেত্রে অত্যন্ত সতর্কতা অবলম্বনের পরামর্শ দিয়েছেন বিজ্ঞানী অধ্যাপক ভলমার।

সূত্রঃ ইন্টারনেট

- Advertisement -