কোরআন থেকে ছেলেদের নাম অর্থ সহ। সব আনকমন

196

- Advertisement -

কোরআন থেকে ছেলেদের নাম অর্থ সহ

আসসালামু আলাইকুম আমাদের সাইটে আসার জন্য আপনাকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন ।  ছেলে-মেয়েদের ইসলামিক নাম শিরোনামে সার্চ করা  অনুযায়ী আপনি সঠিক স্থানে এসেছেন । প্রথমে আপনাকে জানতে হবে নাম সম্পর্কে পবিত্র কুরআনের ঐতিহাসিক ঘোষণা । হাদীসের বর্ণনা । তারপরে নামগুলো । আর এজন্য আপনাকে পুরো লেখাটি পড়তে হবে । পোষ্টটি লিখেছেন তরুণ লেখক শরিফ আহমাদ । সুতরাং এবার পাঠ শুরু করুন ।

       ★ নাম বিষয়ে পবিত্র কুরআনের ঘোষণা ★

আল্লাহ তাআলার অসংখ্য জাতী ও সিফাতী  সুন্দর সুন্দর নাম রয়েছে । পবিত্র কুরআনের ঘোষণা-
মহান আল্লাহ তাআলার অনেক সুন্দর সুন্দর নাম রয়েছে । সুতরাং তোমরা সেগুলোর মাধ্যমে আল্লাহকে ডাকো । আর যারা আল্লাহর নামের বিকৃতি ঘটায় তাদেরকে বর্জন করো । ( সূরা আল আরাফ, আয়াত নং ১৮০)
আল্লাহ তাআলার নাম সংক্রান্ত অনেক হাদিস পাওয়া যায় । তার মাঝে অন্যতম হচ্ছে হযরত আবু হোরায়রা রাদিআল্লাহু তাআলা আনহু থেকে বর্ণিত । তিনি বলেন নবী কারীম সাল্লাল্লাহু সাল্লাম বলেছেন আল্লাহ তাআলার ৯৯- এক কম ১০০টি নাম রয়েছে । যে ব্যক্তির নামগুলো মুখস্ত করবে সে জান্নাতে প্রবেশ করবে ।
( দেখুন সহীহ বুখারী: হাদীস নং ২৭৩৬, ৭৩৯২, সহীহ মুসলিম: হাদীস নং ২৬৭৭, জামে তিরমিযী: হাদীস নং ৩৫০৬ ।

 

আপনার ছেলে সন্তান হলে হাদীসে বর্ণিত আল্লাহ তাআলাল গুণবাচক নামগুলো থেকে পছন্দ করে যে কোন একটি রাখুন । নামের আগে আব্দুন শব্দ যোগ করুন । যেমন আব্দুর রহমান ,আব্দুল মালেক, আব্দুস সাত্তার ইত্যাদি । আর আর এসব নির্বাচিত গুণবাচক নাম দ্বারা আল্লাহ তাআলাকে ডাকুন । জিকির করুন । আল্লাহ তাআলাকে খোদা বলে ডাকা বন্ধ করুন । তদ্রুপ ভাবে খোদা হাফেজ না বলে আল্লাহ হাফেজ বলুন ।

- Advertisement -

        ★নাম সম্পর্কিত হাদীস ★

 

মহান আল্লাহ তা’আলা মানব জাতিকে নেয়ামতের সমুদ্রে ডুবিয়ে রেখেছেন । এসব অসংখ্য নেয়ামতের মধ্যে সুসন্তান একটি শ্রেষ্ঠ নেয়ামত । কেননা মানবজাতির জন্য সন্তান একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ অংশ । বংশ প্রদীপ । শিশুরা পবিত্রতার প্রতীক । শৈশব থেকে তাদেরকে ইসলাম শিক্ষার দিকে গুরুত্ব যেমন দেওয়া উচিত তার আগে সুন্দর নাম রাখা উচিত । এ সম্পর্কে একটি হাদীস শুনুন ।‌
হযরত আবু হোরায়রা রাদিআল্লাহু তাআলা আনহু বলেন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, পিতার উপর নবজাতকের হক বা অধিকার হলো তার জন্য সুন্দর নাম রাখা । তিনি আরো বলেন আল্লাহর কাছে সবচেয়ে প্রিয় নাম হল আব্দুল্লাহ ও আব্দুর রহমান । ( সূত্র কানযুল উম্মাল,খন্ড নং ১৬ পৃষ্ঠা নং ৪১৭ )
নোট: আপনি আপনার সন্তানদের অর্থবহ ইসলামিক নাম রাখার পাশাপাশি বিভিন্ন আদুরে শব্দ দ্বারা তাদের ডাকতে পারেন । কেননা সহীহ মুসলিম শরীফে এসেছে নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হযরত আয়েশা রাদিআল্লাহু তা’আলা আনহাকে হুমায়রা নামে ডাকতেন । এটি ছিল তার প্রতি ভালোবাসার অন্যপ্রকাশ ।

 

★ সন্তানের নাম রাখার আদব ★

১. এ বিষয়টি ভালো করে বুঝে রাখা উচিত যে  সন্তানেরা এ নামটি আজীবন থাকবে । এ নামের কারণে হয়তো তাকে বিব্রতকর কোন পরিস্থিতি ও সমস্যার সম্মুখীন হতে পারে । যার ফলে তার পিতামাতার প্রতি কিংবা যে ব্যক্তি তার নাম রেখেছে তার প্রতি খারাপ মনোভাব তৈরি হতে পারে । তাই অবশ্যই নামটি অর্থবহ সুন্দর হওয়া উচিত ।
২. সন্তানের নাম রাখা পিতার জন্য জরুরী বিষয় তাই নিজের নামের দিকে সম্বন্ধ করে আপনার সন্তানের নাম রাখতে পারেন । তবে এ ক্ষেত্রে আপনার স্ত্রী বা অন্যদের পরামর্শ নেওয়াটা উত্তম ।
৩. আপনার সন্তানের নাম আল্লাহ তাআলার গুণবাচক নাম থেকে কিংবা। কোরআনে বর্নীত নবীগনের নাম  থেকে হতে পারে । তবে সাবধানতার বিষয় হচ্ছে যেন নামের উচ্চারণ সঠিক এবং ব্যঙ্গাত্মক না হয় । কেননা আল্লাহ তায়ালা কিংবা নবীদের নামকে ব্যঙ্গ করা বা অশুদ্ধ উচ্চারণ করা কোন বুদ্ধিমানের কাজ নয় ।
 ৪. আপনার সন্তানের নাম কোন সাহাবী, তাবেয়ীন, তাবে-তাবেয়ীন কিংবা বুজুর্গ, আলেম ওলামার নামে হতে পারে । হাদীসের ভাষ্য অনুযায়ী বোঝা যায় নামের প্রভাব বান্দার ওপর পড়ে । অতএব আপনার সন্তানের নাম যদি ঐ সমস্ত ব্যক্তিবর্গের সাথে হয় তাহলে আপনার সন্তানও ঐরকম হওয়ার সুযোগ থাকে ।
৫. আপনার যদি ছেলে সন্তান হয় তাহলে সাহাবা-তাবেয়ীনের বাইরেও অর্থবহ ইসলামিক আন কমন নাম রাখতে পারেন । আর যদি আপনার কন্যা সন্তান হয়ে থাকে তাহলে কোরআনে বর্ণিত নারীদের নাম কিংবা নেককার রমণীদের সঙ্গে মিলিয়ে রাখতে পারেন । অথবা মহিলা সাহাবীদের নামের সঙ্গে মিলিয়ে রাখতে পারেন ।

      ★ যেসব নাম রাখা নিষেধ ★

১. যেসব নাম বিধর্মী বা কাফের সম্প্রদায়ের সাথে যুক্ত সেগুলো রাখা নিষেধ ।
২. তারকা খ্যাত সিনেমার (নট-নটি) নায়ক নায়িকাদের নামের সঙ্গে নাম মিলিয়ে রাখা নিষেধ । তবে তাদের নাম যদি অর্থবহ ও ইসলামিক হয় তাহলে রাখা যেতে পারে । যদি তাদের অনুসরণে না হয় ইসলামের অনুসরণে হয় ।
৩. যে নাম তারা অহংকার ও নিজের আত্ম অহমিকা প্রকাশ হয় সে নাম রাখা ঠিক নয় ।বান্দার নামের মধ্যেও আবদিয়াত থাকা উচিত ।
৪. আন কমন নাম রাখতে গিয়ে এমন কোন নাম রাখা যাবে না যার কোনো অর্থ নেই । অথবা অর্থ খুবই খারাপ । আশা করি বিষয়গুলো আপনি বুঝতে পেরেছেন ।

কোরআন থেকে মেয়েদের নাম

 ★জান্নাতের সুসংবাদ প্রাপ্ত ১০ সাহাবী

আশারা একটি আরবি ।  শব্দটির অর্থ হচ্ছে দশ । মুবাশশারা শব্দের অর্থ হচ্ছে সুসংবাদ প্রাপ্ত । শব্দ দুটি একত্র করলে অর্থ দাঁড়াচ্ছে সুসংবাদপ্রাপ্ত দশজন । আর‌ সাহাবী অর্থ সঙ্গী-সাথী, বন্ধু ইত্যাদি। শরীয়তের পরিভাষায় সাহাবী বলা হয় যারা নবীজিকে দেখে ঈমান এনেছে এবং ঈমানের ওপর অটল থেকে মৃত্যুবরণ করেছেন ।

 

সমস্ত সাহাবীগণ জান্নাতি হলেও নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাঁর জীবদ্দশায় দশজন সাহাবীকে অগ্রিম জান্নাতের সুসংবাদ দিয়েছেন । আপনার সন্তানের নাম সমস্ত মহান ব্যক্তি বর্গের সাথে মিলিয়ে রাখতে পারেন । নিচে সম্মানিত সেই ১০ জন সাহাবীর নাম-
১. হযরত আবু বকর সিদ্দীক রাদিআল্লাহু তা’আলা আনহু

 

আপনারা পড়ছেন – কোরআন থেকে ছেলেদের নাম এর তালিকা

আপনারা পড়ছেন – কোরআন থেকে ছেলেদের নাম 

২. হযরত ওমর ইবনুল খাত্তাব রাদিআল্লাহু তা’আলা আনহু
৩. হযরত উসমান ইবনে আফফান রাদিআল্লাহু তা’আলা আনহু
৪. হযরত আলী ইবনে তালিব রাদিআল্লাহু তাআলা আনহু ৫. হযরত তালহা ইবনে ওবায়দুল্লাহ রাদিআল্লাহু তা’আলা আনহু
৬. হযরত জুবায়ের ইবনুল আওয়াম রাদিআল্লাহু তা’আলা আনহু
৭. হযরত আব্দুর রহমান ইবনে আউফ রাদিআল্লাহু তা’আলা আনহু
৮. সা’দ ইবন আবী ওয়াক্কাস রাদিআল্লাহু তা’আলা আনহু ৯. হযরত সাঈদ ইবনে সাঈদ রাদিআল্লাহু আনহু
১০. হযরত আবু উবাইদা ইবনে জাররাহ রাদিআল্লাহু তা’আলা আনহু । ( সুনানে তিরমিজী: হাদীস নং ৩৬৮০)

    ★ আরো দশজন সাহাবীর নাম ★

সাহাবিদের নাম
১. হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস রা:
২. হযরত হেলাল ইবনে উমাইয়া রা:
৩. হযরত সাদ ইবনে মুয়াজ রা
৪. হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আমর রা:
৫. হযরত মুসা আশআরী রা:
৬. হযরত আবু যর গিফারী রা:
৭. হযরত আম্মার ইবনে ইয়াসির রা:
৮. হযরত আয়াশ ইবনে আবী রাবিয়া রা:
৯. হযরত হিসাব ইবনুল আস রা:
১০. আব্দুল্লাহ ইবনে রাওয়াহা রা: ।

কোরআন থেকে মেয়েদের নাম অর্থ সহঃ

   ★ উম্মাহাতুল মুমিনীনের নাম ★

আপনার যদি কন্যা সন্তান থাকে আপনার ইচ্ছা হলে আপনি কোরআনে বর্ণিত হযরত মারিয়াম এর নাম অনুস্মরণ করে রাখতে পারেন । রাখতে পারেন আসিয়া , রাহমা , মুশাতা প্রভৃতি নেককার নারীদের নাম ।  উম্মাহাতুল মুমিনীনের নাম অনুসরণ করেও রাখতে পারেন । নিচে তাদের নামের তালিকা দেওয়া হল ।
কোরআন থেকে মেয়েদের নাম
১. হযরত খাদিজা বিনতে খুয়াইলিদ রা:
২. হযরত সাওদা বিনতে জামআ রা:
৩. হযরত আয়েশা বিনতে আবু বকর রা:
৪. হযরত হাফসা বিনতে ওমর রা:
৫. হযরত জয়নাব বিনতে খুযাইমা রা:
৬. হযরত উম্মে সালামা রা:
৭. হযরত জয়নাব বিনতে জাহশ রা:
৮. হযরত জুয়াইরিয়া বিনতে আল হারিস রা:
৯. হযরত সফিয়া বিনতে হুওয়াই রা:
১০. হযরত মায়মুনা কিনতে আল হারিস রা:
১১. হযরত মারিয়া কিবতিয়া রা:

     ★ মহিলা ১০ সাহাবীদের নাম ★

১. আসমা বিনতে আবু বকর রা
২. আরওয়া বিনতে আব্দুল মত্তালাব রা:
৩. উনাইস বিনতে আদী রা:
৪. উম্মে আইমান রা
৫. উম্মে সুলাইম রা:
৬. উম্মে হানি রা:
৭. তামাজুর বিনতে আমের রা:
৮. সুবাইতা বিনতে দাহাক রা:
৯. জুমানা বিনতে আবি তালি
১০. আব্দুল্লাহ ইবনে রাওয়াহা রা: ।

   ★ উম্মাহাতুল মুমিনীনের নাম ★

আপনার যদি কন্যা সন্তান থাকে আপনার ইচ্ছা হলে আপনি কোরআনে বর্ণিত হযরত মারিয়াম এর নাম অনুস্মরণ করে রাখতে পারেন । রাখতে পারেন আসিয়া , রাহমা , মুশাতা প্রভৃতি নেককার নারীদের নাম ।  উম্মাহাতুল মুমিনীনের নাম অনুসরণ করেও রাখতে পারেন । নিচে তাদের নামের তালিকা দেওয়া হল ।
১. হযরত খাদিজা বিনতে খুয়াইলিদ রা:
২. হযরত সাওদা বিনতে জামআ রা:
৩. হযরত আয়েশা বিনতে আবু বকর রা:
৪. হযরত হাফসা বিনতে ওমর রা:
৫. হযরত জয়নাব বিনতে খুযাইমা রা:
৬. হযরত উম্মে সালামা রা:
৭. হযরত জয়নাব বিনতে জাহশ রা:
৮. হযরত জুয়াইরিয়া বিনতে আল হারিস রা:
৯. হযরত সফিয়া বিনতে হুওয়াই রা:
১০. হযরত মায়মুনা কিনতে আল হারিস রা:
১১. হযরত মারিয়া কিবতিয়া রা:

     ★ মহিলা ১০ সাহাবীদের নাম ★

১. আসমা বিনতে আবু বকর রা
২. আরওয়া বিনতে আব্দুল মত্তালাব রা:
৩. উনাইস বিনতে আদী রা:
৪. উম্মে আইমান রা
৫. উম্মে সুলাইম রা:
৬. উম্মে হানি রা:
৭. তামাজুর বিনতে আমের রা:
৮. সুবাইতা বিনতে দাহাক রা:
৯. জুমানা বিনতে আবি তালিব রা
১০. হামনা বিনতে জাহান রা: ।

   ★ একগুচ্ছ ছেলেদের ইসলামী নাম এর তালিকা★

শরিফ অর্থ = ভদ্র ।
উসামা = অর্থ = সিংহ
 হামদান = অর্থ = প্রশংসাকারী
 লাবীব = অর্থ = বুদ্ধিমান
 রাযীন = অর্থ = গাম্ভীর্যশীল
ইহসান অর্থ = দয়া, অনুগ্রহ।
 আজম = অর্থ = সব চেয়ে সম্মানিত।
 ওয়াহাব =অর্থ = মহাদানশীল।
 ওয়াহেদ =অর্থ = এক।
 আজওয়াদ = অর্থ = অতিউত্তম
 আহরার = অর্থ  = স্বাধীন
 ইমতিয়াজ = অর্থ = পরিচিতি
 সাকীফ = অর্থ  = সুসভ্য
 জওয়াদ = অর্থ = দানশীল/ দাতা
 খফীফ = অর্থ = হালকা
  যাকী = অর্থ = মেধাবি
 রাহাত = অর্থ = সুখ
 রাফাত = অর্থ = অনুগ্রহ
 রাহমান=অর্থ =করুণাময়
 রাজ্জাক-অর্থ =রিজিকদাতা
 মুজিব = অর্থ = কবুলকারী
 সামিহ = অর্থ = ক্ষমাকারী
 সালিক = অর্থ = সাধক
 সাবাহ =অর্থ = সকাল
 সফওয়াত=অর্থ = খাঁিট/ মহান
 তাউস=অর্থ = ময়ুর
 ফুয়াদ=অর্থ = অন্তররাপদ
 আমির = অর্থ = নেতা
 আনিস = অর্থ = আনন্দিত
 মুজাহিদ = অর্থ = ধর্মযোদ্ধা
 মুবারক = অর্থ = শুভ
 মামুন= অর্থ =সুরক্ষিত
 নিয়ায= অর্থ =প্রার্থনা
 নাফিস= অর্থ =উত্তম
 রাইয়্যান = অর্থ = জান্নাতের দরজা বিশেষ
 মামদুহ = অর্থ = প্রশংসিত
 নাবহান=অর্থ = খ্যাতিমান
 নাবীল = অর্থ = শ্রেষ্ঠ
 নাদীম = অর্থ = অন্তরঙ্গ বন্ধু
 অর্থ =হা সিখুশী
 সুলতান আহমদ = অর্থ = প্রশংসিত সাহায্যকারী
 সাইফুদ্দীন = অর্থ = দ্বীনের সূর্য্য
 সাইফুল হক = অর্থ = প্রকৃত তরবারী
 সাইফুল হাসান = অর্থ = সুন্দর কল্যাণ
 সাইফুল ইসলাম = অর্থ = ইসলামের প্রিয়
 সাইয়্যেদ = অর্থ = সরদার
 করিম = অর্থ = দানশীল,সম্মানিত
 কাশফ =  অর্থ = উন্মুক্ত করা
 কামাল = অর্থ = যোগ্যতা,সম্পূর্ণতা
 গণী= অর্থ =ধনী
 লোকমান = অর্থ = জ্ঞানী
 মাসুম = অর্থ = নিষ্পাপ
 জাফর = অর্থ = বড় নদী
 ইমাদ = অর্থ = সুদৃঢ়স্তম্ভ
 মাকহুল= অর্থ = সুরমা চোখ
বদর = অর্থ = পূর্ণিমার চাঁদ
 হাম্মাদ=অর্থ =অধিক প্রশংসাকারী
হামদান = অর্থ =প্রশংসাকারী
 সাফওয়ান = অর্থ =স্বচ্ছ শিলা
 রহমত =অর্থ = রহমত
 রায়হানুদ্দীন =অর্থ = দ্বীনের বিজয়ী
পুণ্যবতী
  রঈসুদ্দীন=অর্থ = দ্বীনের সাহায্যকারী
 রশিদ =অর্থ =ধার্মিক

   ★ মেয়েদের একগুচ্ছ ইসলামী নাম এর তালিকা★

 আফরা অর্থ= সাদা
সাইয়ারা অর্থ = তারকা
আফিয়া অর্থ= পুণ্যবতী
মাহমুদা অর্থ= প্রশংসিতা
রামিসা অর্থ= নিরাপদ
রাইসা অর্থ =রানী
রাফিয়া অর্থ= উন্নত
নুসরাত অর্থ= সাহায্য
নাফিসা অর্থ= মূল্যবান
মাসুমা অর্থ= নিষ্পাপ
হাবিবা অর্থ= প্রিয়া
ফারিহা অর্থ= সুখী
বিলকিস (একজন রানী ছিলেন )
তাবিয়া অর্থ= অনুগত
তাবাসসুম অর্থ: মুচকি হাসি
তাহসিনা অর্থ= উত্তম
তোহফা অর্থ= উপহার
তাজকিয়া অর্থ= পবিত্রতা
তাসলিমা অর্থ= সমর্পণ
তাসনিম অর্থ= জান্নাতের ঝর্ণা
মারজানা অর্থ= মুক্তা
তাশবীহ অর্থ= উপমা
তামান্না অর্থ= ইচ্ছা
আদিবা অর্থ= মহিলা সাহিত্যিক
আনিফা অর্থ= রূপসী
আরজা অর্থ= আকাঙ্ক্ষা
আদওয়া অর্থ= আলো
নাজমা অর্থ= দামি
নাসরিন অর্থ= সাহায্যকারী
শিরিন অর্থ =সুন্দরী বা মিষ্টি
রোমানা অর্থ=  ডালিম
কারিমা অর্থ= উচ্চ মনা
কোবরা অর্থ= বড় মুক্তা
কাসিদা অর্থ= কবিতা
খাওলা ( এক সাহাবীর নাম )

আরো পড়ুন – শিশুর ইসলামিক নাম

মাহফুজা অর্থ= নিরাপদ

শেষ কথা

আপনার যদি কোন প্রশ্ন থাকে এই পোষ্টটি সম্পর্কে বা কোন নামের অর্থ জানতে ইচ্ছে করে তাহলে কমেন্ট বক্সে লিখুন । খুব দ্রুত উত্তর দিয়ে দেওয়া হবে ইনশাআল্লাহ ।

- Advertisement -

error: Content is protected !!