তালাক দেওয়ার নিয়ম মাওলানা শরিফ আহমাদ

12

তালাক দেওয়ার নিয়ম

 

সুপ্রিয় পাঠক ‌। বিবাহের মাধ্যমে নারী পুরুষ দাম্পত্য জীবনে প্রবেশ করে । সুখময় জীবন গড়ে তোলে । কিন্তু বিভিন্ন কারণে বিভিন্ন সময় স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বিরোধ দেখা দেয় । একজন আরেকজনকে দেখতে পারে না । জীবন যেন বিষাক্ত হয়ে ওঠে । তাদের মিলনের আর যখন কোন সম্ভাবনাই থাকে না ,তখন তাদের বিচ্ছিন্ন হওয়ার জন্য ইসলামে তালাকের বিধান দেওয়া হয়েছে ।তালাক দেওয়ার নিয়ম কি?

অথচ এই তালাক সম্পর্কে অধিকাংশ মানুষ জানে না । জানে না তালাক দেওয়ার নিয়ম এবং এ সম্পর্কে জরুরি মাসআলা মাসায়েল । এজন্য অনেকেই গুনাহ করে ফেলছে । তাই আজ এখানে তালাক সংক্রান্ত জরুরী বিষয়গুলো উল্লেখ করা হচ্ছে । উপকৃত হবেন নিশ্চিত ।

তালাক দেওয়ার নিয়ম

 

তালাক শব্দের অর্থ কি ?

তালাক একটি আরবী শব্দ। শব্দটির অর্থ হলো বিচ্ছিন্ন হওয়া ,ত্যাগ করা ইত্যাদি ।

 

তালাক কাকে বলা হয় ?

পরিভাষায় তালাক বলা হয় স্বামী তার স্ত্রীর সাথে সকল সম্পর্ক ছিন্ন করে দেওয়াকে । অর্থাৎ ইসলামে আনুষ্ঠানিক বিবাহ বিচ্ছেদকে তালাক বলা হয় ।

 

তালাক দেওয়ার নিয়ম

তালাক দেওয়ার তিনটি নিয়ম বা তরীকা আছে ‌‌।

১. অতি উত্তম নিয়ম ।

২. উত্তম নিয়ম ।

৩. বিদআত ও হারাম নিয়ম ।

এই তিনটির নিয়ম সম্পর্কে নিচে বিবরণ দেওয়া হলো ।

 

 

তালাক দেওয়ার অতি উত্তম নিয়ম

 

তালাক দেওয়ার অতি উত্তম নিয়ম হলো স্ত্রী যখন হায়েস থেকে পাক হবে তখন ( অর্থাৎ তহুর বা পাকীর সময়ে) এক তালাক দিবে এবং শর্ত এই যে , এ তহুরের মধ্যে তার সাথে সহবাস হতে পারবে না । এর পরবর্তী হায়েজ থেকে তার ইজ্জত শুরু হবে এবং তিন হায়েজ অতিবাহিত হলে তার ইদ্দত শেষ হবে । এই ইদ্দতের মধ্যে আর কোন তালাক দেবে না । ইদ্দত শেষ হলে বিয়ে ভেঙে যাবে।

 

তালাক দেওয়ার উত্তম নিয়ম

তালাক দেওয়ার নিয়ম
তালাক দেওয়ার নিয়ম

তালাক দেওয়ার উত্তম নিয়ম হলো স্ত্রী হায়েজ থেকে পাক হলে তহুরের মধ্যে এক তালাক দিবে । তারপর হায়েজ গিয়ে দ্বিতীয় তহুর এলে তাতে আর এক তালাক দিবে । তারপর তৃতীয় তহুরে আর এক তালাক দিবে । এভাবে তিন তহুরে তিন তালাক দিবে এবং ওই সময়ের মধ্যে ওই স্ত্রীর সাথে সহবাস করবে না ‌।

 

তালাক দেওয়ার বিদআত ও হারাম নিয়ম

 

উপরোক্ত তরীকা বা নিয়ম দুটির বিপরীত নিয়মে তালাক দেওয়া । যেমন একসঙ্গে তিন তালাক দেওয়া , বা হায়েজের সময় তালাক দেওয়া, বা যে তহুরে সহবাস হয়েছে সেই তহুরে তালাক দেওয়া । এসব অবস্থায় তালাক দিলে তালাক হয়ে যায় । তবে গুনাহ হবে । অতএব তা থেকে বিরত থাকা উচিত ।

 

 

তালাক দেওয়ার মাসয়ালা

 

১. নিতান্ত অপারগতা ছাড়া তালাক দেওয়া জুলুম ও অন্যায় ।

২. নিতান্ত ঠেকা ব্যতীত স্বামীর তালাক চাওয়া মহাপাপ ।

৩. কোন কল্যাণ ও প্রয়োজনে তালাক দেয়া মুবাহ বা জায়েজ ।

৪. স্ত্রী যদি স্বামীর জন্য কষ্টদায়ক হয় বা স্ত্রী নামাজ সম্পূর্ণ পরিত্যাগ কারিনী হয় বা স্বামীর অবাধ্য হয় তাহলে সে স্ত্রীকে তালাক দিয়া দেওয়া মুস্তাহাব । বোঝানো সত্ত্বেও যে স্ত্রী অশ্লীল কাজে লিপ্ত হয় তাকে তালাক দিয়ে দেওয়া উত্তম ।

৫. স্বামীর পক্ষ থেকে স্ত্রীর হক আদায় করতে অক্ষমতা দেখা দিলে তালাক দেওয়া ওয়াজিব । তবে স্ত্রী তার হক মাফ করে দিলে ওয়াজিব থাকে না ।

৬. নিজের কানে শোনা যায় এতোটুকু শব্দে তালাক দিলেই তালাক হয়ে যায় । স্ত্রীর বা অন্য কারো শোনা যাওয়া জরুরি নয় ।

৭. হাসি-ঠাট্টা করে বা রাগের মুহূর্তে বা নেশা করে মাতাল অবস্থায় তালাক দিলেও তালাক হয়ে যায় ।

৮. তালাক দেওয়ার ক্ষমতা স্বামীর ব্যতীত অন্য কারো নেই । অবশ্য স্বামী কাউকে ( স্ত্রী বা অন্য কাউকে) তালাক দেওয়ার ক্ষমতা দিলে সে তালাক দিতে পারে ।

৯. হায়েজ নেফাস অবস্থায় তালাক দিলে তালাক হয়ে যায় । তবে হায়েজ নেফাস অবস্থায় তালাক দেওয়া গুনাহ ।

১০. একসঙ্গে তিন তালাক দেওয়া হারাম ও গুনাহে কবিরা । তবে একসঙ্গে তিন তালাক দিলেও তিন তালাক হয়ে যাবে এবং স্ত্রী তার জন্য সম্পন্ন হারাম হয়ে যাবে । এমতাবস্থায় নিয়ম মাফিক অন্য স্বামীর ঘর হয়ে ঘুরে না আসলে আর তাকে স্ত্রী হিসেবে রাখার বা বিয়ে করার উপায় থাকবে না ।

১১. কারো চাপ ,জোর জবরদস্তি বা হুমকির মুখে তালাক দিলেও তালাক হয়ে যাবে ।

( আহকামে জিন্দেগি , পৃষ্ঠা নং ৪২৪-২৫ )

 

 

ইদ্দত মূলত কি ?

 

স্ত্রী তালাকপ্রাপ্তা হলে বা তার স্বামীর মৃত্যু হলে যে সময়ের জন্য উক্ত স্ত্রীকে এক বাড়িতে থাকতে হয় , অন্যত্র যেতে পারে না ,বা অন্য কোথাও বিয়ে বসতে পারে না তাকেই মূলত ইদ্দত বলে । ইদ্দতের মাসআলা মাসায়েল নিচে উল্লেখ করা হলো ।

 

 

ইদ্দতের মাসয়ালা মাসায়েল

 

১. স্ত্রী তালাকপ্রাপ্ত হলে তালাকের তারিখের পর পূর্ণ তিন হায়েজ অতিবাহিত না হওয়া পর্যন্ত উক্ত স্ত্রীর পক্ষে অন্য কোথাও বিয়ে বসা হারাম ।

২. উক্ত ইদ্দতের সময়ে তাকে স্বামীর বাড়িতে নির্জন বাসস্থানে থাকতে হবে ।

৩. উক্ত স্ত্রী বয়স কম হওয়ার কারণে বা বৃদ্ধ হওয়ার কারণে হায়েজ না আসলে তিন হায়েজের পরিবর্তে পূর্ণ তিন মাস উপরোক্ত নিয়মে ইদ্দত পালন করতে হবে ।

৪. গর্ভাবস্থায় তালাক হলে সন্তান প্রসব হওয়া মাত্রই ইজ্জত শেষ হয়ে যাবে । তাই যত দ্রুত প্রসব হোক না কেন ।

৫. হায়েজের অবস্থা তালাক হলে সে হায়েজকে ইদ্দতের মধ্যে ধরা যাবে না । সে হায়েজ বাদ দিয়ে পরবর্তী তিন হায়েজ ইদ্দত পালন করতে হবে ।

৬. যদি কোন স্ত্রীর সাথে স্বামীর সহবাস বা নির্জন বাস হওয়ার পূর্বে স্বামী তাকে তালাক দিয়ে দেয় তাহলে তাকে ইদ্দত পালন করতে হয় না ‌।

৭. তালাকে বায়েন হলে ইদ্দত পালন করার সময় ( পূর্ব) স্বামী থেকে সতর্কতার সাথে পূর্ণ মাত্রায় পর্দা রক্ষা করে চলতে হবে । তবে স্বামী কর্তৃক অবৈধভাবে আক্রান্ত হওয়ার প্রবল আশঙ্কা থাকলে সেখান থেকে সরে অন্যত্র গিয়ে ইদ্দত পালন করাই সমীচীন হবে ।

৮. কোন বিয়ে যদি অবৈধ হয় এবং সহবাস হয় তাহলে ওই পুরুষ যখন তাকে পরিত্যাগ করবে তখন থেকে ইদ্দত পালন করতে হবে ।

৯. যে স্ত্রীর স্বামী মারা যায় তার ইদ্দত হল চার মাস দশ দিন । আর গর্ভবতী হলে তার ইদ্দত সন্তান প্রসব হওয়া পর্যন্ত ।

১০. স্বামীর মৃত্যু হলে মৃত্যু কালে স্ত্রী যে বাড়িতে ছিল ইদ্দত পালন করার সময় রাত দিন সে বাড়িতেই থাকবে । অবশ্য গরিব হলে এবং বাইরে গিয়ে কাজকর্ম ব্যতিরেকে খাওয়া পরার ববস্থা না থাকলে দিনের বেলায় কাজের জন্য বাইরে যেতে পারবে । কিন্তু রাতের বেলায় সে বাড়িতেই থাকতে হবে । বাড়িতে নিজেদের একাধিক ঘর বা একাধিক কামরা থাকলে যে কোন ঘর বা যে কোন কামড়ায় থাকতে পারবে । বাড়ির বারান্দা বা উঠানেও বের হতে পারবে ।

১১. স্বামীর মৃত্যু চাঁদের প্রথম তারিখে হলে চাঁদের হিসেবে চার মাস দশ দিন ধরা হবে । আর চাঁদের প্রথম তারিখ ছাড়া অন্য যেকোনো তারিখের মৃত্যু হলে ৩০ দিনের পর চার মাস এবং তারপর দশ দিন অর্থাৎ ১৩০ দিন বিদ্যুৎ পালন করতে হবে । স্ত্রী ঋতুবর্তী বা গর্ভবতী না হলে যদি থাকে তালাক দেওয়া হয় ,তাহলে চাঁদের প্রথম তারিখে তালাক হলে চাঁদের হিসেবে তিন মাস আর অন্য তারিখে তালাক হলে ৩০ দিনের ৩ মাস অর্থাৎ ৯০ দিন ইদ্দত ধরা হবে ।

১২. স্বামী মৃত্যু সংবাদ পেতে দেরি হলে সংবাদ পাওয়ার পূর্বে যে সময় অতিবাহিত হয়েছে সেটাও ইদ্দতের ভেতর অবিবাহিত হয়েছে ধরা হবে । আর ইদ্দতের পূর্ণ সময় অতিবাহিত হওয়ার পর সংবাদ পেলে আর তাকে ইদ্দল করতে হবে না । তার ইদ্দত পূর্ণ হয়ে গেছে ধরা হবে ।

ঘুমানোর আগের আমল

 

গ্রন্থনা: মাওলানা শরিফ আহমাদ

লেখক ও শিক্ষক

- Advertisement -