- Advertisement -

- Advertisement -

ফ্রি ফায়ার খেলতে মোবাইল না পেয়ে স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা!

20

‘বাবা-মা আমাকে ফ্রি ফায়ার গেম খেলতে দিত না। বকাঝকা করতো। তাই আমি চলে গেলাম। আমাকে আর বকাঝকা করতে হবে না’।

চিরকুটে এমন কথা লিখে বগুড়ার শাজাহানপুরে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে উম্মে হাবিবা বর্ষা (১২) নামের এক কিশোরী স্কুলছাত্রী।

দীর্ঘদিন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় এইসব গেমে আসক্ত হয়ে পড়েছে অধিকাংশ শিক্ষার্থী ৷ গ্রামে-গঞ্জে সর্বত্র ছড়িয়ে পড়েছে করোনার চেয়েও ভয়ংকর এ মহামারী ৷

বর্ষা বগুড়ার সারিয়াকান্দি উপজেলার রামকৃঞ্চপুর গ্রামের সার্জেন্ট রওশন হাবিবের মেয়ে। সে বগুড়া ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী ছিল।

- Advertisement -

 

নিহত বর্ষার বাবা ঢাকা ক্যান্টনমেন্টে চাকরির সুবাদে ঢাকাতেই থাকেন। শাজাহানপুর উপজেলার বি-ব্লক রহিমাবাদ গ্রামে ভাড়া বাসায় মা তার দুই মেয়েকে নিয়ে বসবাস করেন।

মঙ্গলবার (২৫ মে) বেলা ১২টার দিকে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) ফয়সাল মাহমুদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

নিহতের স্বজনরা জানান, সোমবার রাতে গেম খেলার জন্য বর্ষা তার মায়ের কাছে মোবাইল ফোন চায়। কিন্তু মা মোবাইল না দেয়ায় নিজের শোয়ার ঘরে গিয়ে শুয়ে পড়ে। মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে তার মা ডাকতে গিয়ে দরজা লাগানো দেখতে পান। অনেক ডাকাডাকির পরও দরজা না খোলায় আশপাশের লোকজন এসে প্রথমে জানালা ভেঙে বর্ষাকে সেলিং ফ্যানের সঙ্গে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ঝুলে থাকতে দেখেন। পরে জানালা দিয়ে দরজার ছিটকি খুলে মরদেহ নামানো হয়।

শাজাহানপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, আত্মহত্যার আগে মেয়েটি চিরকুট লিখে গেছে। প্রয়োজনীয় আইনি প্রক্রিয়া শেষে মরদেহ স্বজনদের হাতে হস্তান্তর করা হয়েছে।