মিডিয়ায় ইসলাম প্রচারে দায়িত্ব ও করণীয়

1 211


👉 শরিফ আহমাদ

বর্তমানে চলছে মিডিয়ার স্বর্ণযুগ ৷ বিজ্ঞান এবং ডিজিটাল তথ্যপ্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে এগুচ্ছে দেশ ৷ বিশ্বের সাথে তাল মিলানোর চলছে প্রতিযোগিতা ৷ বিজ্ঞানের উন্নতির এই
যুগে স্বভাবতই মানুষ বদলে যাচ্ছে ৷ হচ্ছে প্রযুক্তি এবং মিডিয়া নির্ভর ৷ এযুগে ইসলামের অমিয় বাণী প্রচার-প্রসারের অন্যতম
মাধ্যম হচ্ছে মিডিয়া। প্রযুক্তির সঠিক
ব্যবহার নিশ্চিত করে মিডিয়ার মাধ্যমে অতি অল্প সময়ে অসংখ্য মানুষের কাছে দ্বীনের সঠিক দাওয়াত পৌঁছানো সম্ভব। আর তাই ইসলামের সুমহান আদর্শকে সমগ্র পৃথিবীর মানুষের সামনে
তুলে ধরতে প্রযুক্তি ও মিডিয়া ব্যবহারের
কোনো বিকল্প নেই। এ কারণেই সর্বাগ্রে আলেম সমাজকে এগিয়ে আসতে হবে ৷ গ্রহণ করতে হবে যুগোপযোগী নানা পদক্ষেপ ৷
বর্তমানে ইনফরমেশন টেকনোলজি
ব্যবহার করে ইসলামের বিরুদ্ধে যে অপপ্রচার
চালানো হচ্ছে, তার জবাব আলেমদের পক্ষ
থেকেই আসা উচিত। তাছাড়া ইসলামের নামে অসংখ্য নতুন ফিৎনা, বিভ্রান্ত মতবাদের আবির্ভাব ঘটছে। ওলামায়ে কেরামের এসবের প্রতিবাদ মিডিয়ার মাধ্যমে না করলে এর সুরাহা হওয়াটা প্রায় অসম্ভব ৷
এমতাবস্থায় যারা ইসলাম নিয়ে
ভাবেন, ইসলামের প্রসারই যাদের কাম্য ও কর্ম,
তাদের জাগ্রত হওয়া সময়ের দাবী ৷ এবং তাদের দায়িত্ব সুস্থ মিডিয়া ও নির্দোষ গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠা করে কার্যক্রম সচল করা ৷ দলীল ভিত্তিক জবাব দেওয়া ৷ কেননা পবিত্র কুরআনে আল্লাহ তাআলা বলেন,
﴿ ﻭَﻣَﻦْ ﺃَﺣْﺴَﻦُ ﻗَﻮْﻟًﺎ ﻣِﻤَّﻦْ ﺩَﻋَﺎ ﺇِﻟَﻰ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﻭَﻋَﻤِﻞَ ﺻَﺎﻟِﺤًﺎ ﻭَﻗَﺎﻝَ ﺇِﻧَّﻨِﻲ ﻣِﻦَ
ﺍﻟْﻤُﺴْﻠِﻤِﻴﻦَ ﴾
‘আর তার চেয়ে কার কথা উত্তম, যে আল্লাহর দিকে দাওয়াত দেয়, সৎকর্ম করে এবং বলে, আবশ্যই আমি
মুসলিমদের অন্তর্ভুক্ত ? ( সুরা ফুসসিলাত : ৩৩)
নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন,
ﻟَﺄَﻥْ ﻳَﻬْﺪِﻱَ ﺍﻟﻠﻪُ ﺑِﻚَ ﺭَﺟُﻠًﺎ ﻭَﺍﺣِﺪًﺍ ﺧَﻴْﺮٌ ﻟَﻚَ ﻣِﻦْ ﺃَﻥْ ﻳَﻜُﻮﻥَ ﻟَﻚَ ﺣُﻤْﺮُ ﺍﻟﻨَّﻌَﻢِ
‘আল্লাহ যদি তোমার মাধ্যমে একজনকে হেদায়েত
দেন তবে তা লাল উটের চেয়ে উত্তম। ( সহীহুল বুখারী : হাদীস ৩০৭।
তিনি আরও ইরশাদ করেন, ﺑَﻠِّﻐُﻮﺍ ﻋَﻨِّﻲ ﻭَﻟَﻮْ ﺁﻳَﺔً
‘তোমরা আমার পক্ষ থেকে একটি বাক্য হলেও
পৌঁছে দাও। (সহীহ বুখারী হাদীস ৩৪৬১)
উল্লেখিত কুরআনের আয়াত ও হাদিসের আলোকে বুঝা যায় প্রত্যেক মুসলিমের কর্তব্য নবী-রাসূল,
সমাজসংস্কারক ও আল্লাহর পথে একনিষ্ঠভাবে
আহ্বানকারী পুণ্যবান ব্যক্তিদের পথ অনুসরণ করা। এবং তাদের অনুবর্তিতায় দাওয়াতের কাজ করা ৷ মনে রাখতে হবে উন্নত
বিভিন্ন দেশের আলেমরা ইনফরমেশন
টেকনোলজি সঠিক ব্যবহার করে ইসলামের
দাওয়াতের ক্ষেত্রে অনেক দূর এগিয়ে
গেছেন। বিশেষ করে আরব, পাকিস্তানের আলেমরা ইউটিউব, ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ, মেইল ও
ওয়েবসাইটের মাধ্যমে লাখ লাখ মানুষের কাছে
ইসলামের বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরছেন।
এক্ষেত্রে দেশীয় আলেমরা টেকনোলজির এসব
ক্ষেত্রকে দাওয়াতের মাধ্যম হিসেবে গ্রহণ
করে ইসলামের প্রচার-প্রসারে কী করে
আরো বেশি ভূমিকা পালন করতে পারেন ৷ সে
বিষয়ে অনেক ভাবতে হবে। সম্ভবনার দুয়ার খুলতে হবে ৷ ইসলামের খেদমতে
প্রযুক্তিকে কীভাবে আরো শক্তিশালী করা
যায় তা নিয়ে কার্যকর পরিকল্পনা গ্রহণ করা আজ অতীব জরুরি। আল্লাহপাক আমাদের সব চিন্তা,সব উদ্যোগ ইসলামের কল্যাণে, মানবতার কল্যাণে, দেশ জাতি ও উম্মাহর কল্যাণে কবুল করুন। আমিন।

- Advertisement -