- Advertisement -

- Advertisement -

বাংলা উচ্চারণ সহ ইস্তেখারা নামাজের নিয়ম ও নিয়ত এবং ইস্তেখারার দোয়া

5,462

ইস্তেখারা নামাজ

ইস্তেখারা কী, কেন ও কীভাবে?

আসসালামুআলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহ । আশাকরি সবাই ভালো আছেন। আজকে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে আপনাদের সাথে আলোচনা করবো ইনশাআল্লাহ ।

আমার কাছে অনেকেই ব্যক্তিগতভাবে, ইনবক্স করে  জানতে চেয়েছেন ইস্তেখারা আসলে কী এবং কেন ও কীভাবে করতে হয়। আমরা আজ সে ব্যাপারে আলোকপাত করবো, ইনশা’আল্লাহ! আমরা জানবো ইস্তেখারা নামাজের নিয়ম, ইস্তেখারা নামাজের নিয়ত,ইস্তেখারা নামাজের দোয়া, ইস্তেখারা নামাজ কখন পড়তে হয়।মোটকথা  ইস্তেখারা নামাজ নিয় খুটিনাটি সব কিছু আলোচনা করার চেষ্টা করবো ইনশাআল্লাহ

ইস্তিখারা কী?

ইস্তেখারা শব্দটি আরবী। এর আভিধানিক অর্থ হলো, কোন বিষয়ে কল্যাণ চাওয়া।

ইসলামী পরিভাষায় ইস্তেখারা কাকে বলে ? :

দুই রাকাত সালাত ও বিশেষ দুয়ার মাধ্যমে আল্লাহর তায়ালার নিকট দুটি বিষয়ের মধ্যে কল্যাণকর বিষয়ে মন ধাবিত হওয়ার জন্য আশা করা। অর্থাৎ দুটি বিষয়ের মধ্যে কোনটি অধিক কল্যাণকর হবে এ ব্যাপারে আল্লাহর নিকট দু রাকাত সালাত ও ইস্তিখারার দুয়ার মাধ্যমে সাহায্য চাওয়ার নামই ইস্তেখারা। [ইবনে হাজার, ফাতহুল বারী শরহু সহীহিল বুখারী]

সহজ কথায় ইস্তিখারা হচ্ছে আল্লাহর কাছে পরামর্শ চাওয়া এবং তাঁর ইলম, কুদরত ও ফজীলতের মাধ্যমে তাঁর সাহায্য কামনা করা।

আল্লাহর রসূল (ﷺ) এটা তাঁর সাহাবীদেরকে সেভাবে শিখিয়েছেন যেভাবে তিনি তাঁদেরকে কুরআন শিক্ষা দিতেন, যেমনটা বুখারী ও অন্যান্য হাদীস সংকলনে জাবির ইবন আব্দুল্লাহ (রাঃ) থেকে বর্ণিত হয়েছে। যে ব্যক্তি ইস্তিখারা করবে সে তার কাজের জন্য পরে পস্তাবে না, ইনশা’আল্লাহ্‌।

‍ইস্তেখারা নামাজ কখন পড়তে হয়?

ইস্তেখারা নামাজ

মানুষ বিভিন্ন সময় একাধিক বিষয়ের মধ্যে কোনটিকে গ্রহণ করবে সে ব্যাপারে দ্বিধা-দ্বন্দ্বে পড়ে যায়। কারণ, কোথায় তার কল্যাণ নিহিত আছে সে ব্যাপারে কারো জ্ঞান নেই। তাই সঠিক সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়ার জন্য মহান আল্লাহর তাআলার পক্ষ থেকে উক্ত বিষয়ে সিদ্ধান্ত আসার জন্য সাহায্য প্রার্থনা করতে হয়। যেন তিনি সিদ্ধান্তকে এমন জিনিসের উপর স্থির করে দেন যা তার জন্য উপকারী ও কল্যাণকর হয়।

ইস্তেখারা নামাজ পড়ার সময়ঃ

এই নামাযের নির্দিষ্ট সময় নেই। সাধারণ নফলের হুকুমেই পড়ে এটি।যেমন: বিয়ে, চাকরী, সফর ইত্যাদি বিষয়ে ইস্তেখারা করতে হয়।

ইস্তিখারা নামাজ  কেন পড়ে?

কোন মুসলিম যখন কোন মুবাহ কাজ করার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে চায় তখন সে ইস্তিখারা করবে এই নিয়্যতে যে আল্লাহ তা‘আলা তার জন্য কল্যাণকর কিছুর ব্যবস্থা করে দেবেন। মুবাহ হচ্ছে ঐ সমস্ত কাজ-কর্ম, খাবার-দাবার, ইত্যাদি যা অনুমোদিত বা হালাল, কিন্তু ফরজ বা ওয়াজিব না। অর্থাৎ কেউ চাইলে তা করতে পারে, না চাইলে না করতে পারে। এগুলো করতে কেউ বাধ্য নয়। করলে সাধারণত কোন সওয়াব নেই এবং না করলে কোন গুনাহ নেই। এরকম অনেক কিছু করা অনেক সময় জীবন ধারণের জন্য প্রয়োজনীয় হয়ে পড়ে। তখন সিদ্ধান্ত নেয়ার জন্য ইস্তিখারা করতে আমাদের শিখিয়েছেন আল্লাহর নবী (ﷺ)। এই মুবাহ কাজগুলোর মধ্যে রয়েছে কোন স্কুল-কলেজে পড়া ৷ কোন প্রতিষ্ঠানে চাকরী-বাকরী করা ৷ কাউকে বিয়ে করা ৷ কোন বিশেষ দেশে, শহরে বা গ্রামে বসতি স্থাপন করা ৷ কোন বিশেষ বস্তু [যেমন গাড়ি] ক্রয় করা ৷ কোন ব্যবসা বাণিজ্য শুরু করা, ইত্যাদি।

কিছু  উদাহরণ দেয়া যাক

ধরুন, আপনি চাচ্ছেন হার্ভার্ডে পড়বেন এবং হতে পারে আপনি চান্সও পেলেন। কিন্তু সে প্রতিষ্ঠানে পড়াটা আপনার দুনিয়া ও আখিরাতে কল্যাণকর হবে কিনা আপনি তা জানেন না। তাই আপনি ইস্তিখারা করে সিদ্ধান্ত নেবেন সেখানে যাবেন কী যাবেন না।

একইভাবে ধরুন আপনি একটা বিশেষ হালাল চাকরী করতে চান এবং আপনি একাধিক জায়গায় আবেদন করেছেন আর সেগুলোতে আপনার আবেদন গৃহীত হয়েছে। এই জায়গাগুলো থেকে যে অফার আপনাকে দেয়া হচ্ছে তাতে বেতনের তারতম্য আছে। ধরুন কেউ আপনাকে বছরে ১ লাখ ডলার অফার করেছে ও অন্যান্যরা যথাক্রমে ৯০ হাজার ও ৮০ হাজার অফার করেছে। এখন আপনি এ চাকরিগুলোর কোনটা গ্রহণ করবেন সে সিদ্ধান্ত নিতে ইস্তিখারা করবেন।

ইস্তেখারা নামাজ

 

- Advertisement -

বাহ্যিকভাবে বেতন বেশিওয়ালাটা আকর্ষণীয় হলেও সেটা আপনার দুনিয়া ও আখিরাতের কল্যাণের কারণ হবে কিনা তা আপনি জানেন না। তাই আপনি ইস্তিখারা করে সিদ্ধান্ত নিবেন। অথবা আবেদন করার পূর্বেও আপনি ইস্তিখারা করতে পারেন আদৌ সেখানে আবেদন করবেন কি করবেন না সে সিদ্ধান্ত নিতে।

একই কথা বিয়ে শাদী করার ক্ষেত্রেও। কোন পাত্র বা পাত্রী আপনার জন্য কল্যাণকর হবে তা আল্লাহই জানেন। তাই তাঁর পরামর্শ ও সাহায্য কামনা করবেন ইস্তিখারার মাধ্যমে। আপনি আমেরিকা আসবেন কি আসবেন না সে ব্যাপারেও ইস্তিখারা করে সিদ্ধান্ত নেবেন। এইভাবে সব ধরণের মুবাহ কাজের ক্ষেত্রে আপনি ইস্তিখারা করবেন।

­ইস্তেখারা করা কতটুকু  সঠিক

শাইখুল ইসলাম ইবনে তাইমিয়া রহঃ বলেন:
“সে ব্যক্তি অনুতপ্ত হবে না যে স্রষ্টার নিকট ইস্তেখারা করে এবং মানুষের সাথে পরামর্শ করে সিদ্ধান্ত নেয় এবং তার উপর অটল থাকে।”

আল্লাহ তাআলা বলেন:
“আর তুমি সিদ্ধান্তের ক্ষেত্রে মানুষের সাথে পরামর্শ কর। অত:পর আল্লাহর উপর ভরসা করে (সিদ্ধান্তে অটল থাক)। আল্লাহ ভরসাকারীদের পছন্দ করেন।“  [সূরা আলে ইমরান: ১৫৯]

কাতাদা(রহঃ) বলেন:
“মানুষ যখন আল্লাহ তায়ালা সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে পরস্পরে পরামর্শ করে তখন আল্লাহ তায়ালা তাদেরকে সব চেয়ে সঠিক সিদ্ধান্তে পৌঁছার তাওফীক দেন।”

 

ইমাম নববী রহ. বলেন:
“আল্লাহ তায়ালার নিকট ইস্তেখারা করার পাশাপাশি অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ভাল লোকদের পরামর্শ গ্রহণ করা দরকার। কারণ, মানুষের জ্ঞান-গরিমা অপূর্ণ। সৃষ্টিগতভাবে সে দুর্বল। তাই যখন তার সামনে একাধিক বিষয় উপস্থিত হয় তখন কি করবে না করবে, বা কি সিদ্ধান্ত নিবে তাতে দ্বিধায় পড়ে যায়।”

কোথায় ইস্তিখারা করা যাবে না?

যে কাজ হারাম অথবা যে কাজ ফরজ বা ওয়াজিব তাতে কোন ইস্তিখারা নাই। যেমন, যে চাকরির সাথে হারাম জড়িত তা করা না করার জন্য কোন ইস্তিখারা নাই। তাতে অবশ্যই যোগ দেয়া যাবে না।

উদাহরণ দিই একটা। আপনি সুদী ব্যাংকে চাকরির অফার পেয়েছেন। এখন এখানে যোগ দেবার বা না দেবার জন্য কোন ইস্তিখারা নাই। আপনার এখানে যোগ দেয়াটাই হারাম। একইভাবে কেউ কোন মুসলিম কোন কাফির, মুশরিক নারী বা পুরুষকে বিয়ে করবে কি করবে না সেজন্য ইস্তিখারা করবে না। সে অবশ্যই কাফির, মুশরিককে বিয়ে করবে না, কারণ এটা তার জন্য নিষিদ্ধ।

অন্যদিকে যে কাজ করা ফরজ বা ওয়াজিব [যা অবশ্যই করতে হবে] তার জন্যও কোন ইস্তিখারা নাই। এখানে ইস্তিখারা করে সিদ্ধান্ত নেয়ার কিছু নাই। আপনাকে তো এ কাজ অবশ্যই করতে হবে। যেমন আপনি জাকাত দিবেন কি দিবেন না সেজন্য ইস্তিখারা করবেন না। আপনার বাপ-মাকে সাহায্য করবেন না কি করবেন না সেজন্যও ইস্তিখারা করবেন না। অথবা মুসলিমদের দেশ দুশমনদের দ্বারা আক্রান্ত হয়েছে এবং মুসলমানদের আমীর দুশমনের বিরুদ্ধে জিহাদের জন্য সাধারণ [আম] সমন জারী করেছেন; এমতাবস্থায় আপনি ইস্তিখারা করে সিদ্ধান্ত নেবেন না। এই জিহাদে যোগ দেয়া আপনার জন্য ওয়াজিব।

ইস্তেখারা করার নিয়ম

জাবের বিন আবদুল্লাহ(রা.) বর্ণনা করেন, “রসূলুল্লাহ (ﷺ) আমাদেরকে সব বিষয়ে ইস্তেখারা করার শিক্ষা দিতেন; যেভাবে তিনি আমাদের কুরআনের সুরা শিক্ষা দিতেন।” তিনি বলতেন, “তোমাদের কেউ যখন কোনো [মুবাহ] কাজের উদ্যোগ নেয়, তখন সে যেন দুই রাকাত নফল নামাজ পড়ে। অতঃপর বলে:
اللَّهُمَّ إِنِّي أَسْتَخِيرُكَ بِعِلْمِكَ وَأَسْتَقْدِرُكَ بِقُدْرَتِكَ، وَأسْأَلُكَ مِنْ فَضْلِكَ الْعَظِيمِ، فَإِنَّكَ تَقْدِرُ وَلاَ أَقْدِرُ وَتَعْلَمُ وَلاَ أَعْلَمُ وَأَنْتَ عَلاَّمُ الْغُيُوبِ، اللَّهُمَّ إِنْ كُنْتَ تَعْلَمُ أَنَّ هَذَا الأَمْرَ خَيْرٌ لِي فِي دِينِي وَمَعَاشِي وَعَاقِبَةِ أَمْرِي ـ أَوْ قَالَ عَاجِلِ أَمْرِي وَآجِلِهِ ـ فَاقْدُرْهُ لِي وَيَسِّرْهُ لِي ثُمَّ بَارِكْ لِي فِيهِ، وَإِنْ كُنْتَ تَعْلَمُ أَنَّ هَذَا الأَمْرَ شَرٌّ لِي فِي دِينِي وَمَعَاشِي وَعَاقِبَةِ أَمْرِي ـ أَوْ قَالَ فِي عَاجِلِ أَمْرِي وَآجِلِهِ ـ فَاصْرِفْهُ عَنِّي وَاصْرِفْنِي عَنْهُ، وَاقْدُرْ لِي الْخَيْرَ حَيْثُ كَانَ ثُمَّ أَرْضِنِي  بِهِ‏
“হে আল্লাহ! আমি তোমার ইলমের মাধ্যমে আপনার কাছে কল্যাণ প্রার্থনা করছি। আমি আপনার শক্তির সাহায্যে শক্তি চাইছি এবং আপনার কাছে অনুগ্রহ প্রার্থনা করছি। কেননা,  আপনিই ক্ষমতাবান; আর আমি ক্ষমতা রাখি না। আপনি জ্ঞান রাখেন, আমার জ্ঞান নেই এবং আপনি অদৃশ্য বিষয়ে সম্পূর্ণ ওয়াকিবহাল।

হে আল্লাহ! আপনার জ্ঞানে আমার এ কাজ (নিজের প্রয়োজনের নামোল্লেখ করবে অথবা মনে মনে স্মরণ করবে) আমার বর্তমান ও ভবিষ্যৎ জীবনের জন্য (কিংবা বলবে আমার দ্বীনদারি, জীবন-জীবিকা ও কর্মের পরিণামে) কল্যাণকর হলে,  আপনি তা আমার জন্য নির্ধারণ করে দিন। সেটা আমার জন্য সহজ করে দিন এবং তাতে বরকত দিন। হে আল্লাহ! আর যদি আপনার জ্ঞানে আমার এ কাজ আমার দ্বীনদারি, জীবন-জীবিকা ও কর্মের পরিণামে (কিংবা বলবে, আমার বর্তমান ও ভবিষ্যতের জন্য) অকল্যাণকর হয়, তবে আপনি আমাকে তা থেকে ফিরিয়ে দিন এবং সেটাকেও আমার থেকে ফিরিয়ে রাখুন। যেখানে আমার জন্য কল্যাণ রয়েছে তা নির্ধারণ করে রাখুন এবং আমাকে সেটার প্রতি সন্তুষ্ট করে দিন।”  (বুখারি, হাদিস: ৬৩৮২-৬৮৪১; তিরমিজি, হাদিস: ৬৪৮)

আপনি যখন কোন মুবাহ কাজের নিয়্যত করবেন অথবা কোন মুবাহ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে যাবেন তখন উপরে বর্ণিত নিয়মানুযায়ী আমল করবেন। সেটাই ইস্তিখারা। আর এটা শুধু একবারই করবেন না। প্রয়োজনে একই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়ার জন্য একাধিকবার ইস্তিখারা করবেন। ইস্তিখারা করার পর আপনার মন যেদিকে টানে সেদিকে সিদ্ধান্ত নেবেন। ইস্তিখারা দিনের যে কোন সময়ে করা যায়, শুধু নামাজের নিষিদ্ধ সময় ব্যতীত। ইস্তিখারা শেষে আপনাকে স্বপ্ন দেখতে হবে – এমনটা জরূরী নয়।
এটা রসূলুল্লাহ (ﷺ) এর শেখানো একটা বিশেষ সুন্নাহ। যে এর ভিত্তিতে আমল করবে, সে তার কাজের জন্য পস্তাবে না, ইনশা’আল্লাহ্‌।

ইস্তেখারা নামাজের নিয়ত বাংলা উচ্চারণঃ

নাওয়াইতু আন উসাল্লিয়া লিল্লাহি তাআলা রাকয়াতাই সালাতিল ইস্তেখারাতি নাফলা, মুতাওয়াজজিহান ইলা জিহাতিল কা’বাতিশ শারীফাতি আল্লাহু আকবার।

ইস্তেখারা নামাজের দোয়া   বাংলা উচ্চারণঃ

ইস্তেখারা নামাজের দোয়া

আল্লাহুম্মা ইন্নী-আস্তাখিরুকা বি-ইলমিকা ওয়া আস্তাকদিরুকা বি-কুদরাতিকা ওয়াআসআলুকা মিনফাদলিকাল আযীম, ফা-ইন্নাকা তাকদিরু ওয়ালা আকদিরু, ওয়া তা’লামু ওয়ালা আ’লামু ওয়া আন্তা আল্লামুল গুয়ূব। আল্লাহুম্মা ইনকুন্তা তা’লামু আন্না “হাযাল আমরা” (এখানে নিজের কাজের কথা উল্লেখ করবে) খাইরুল্লি ফী- দ্বীনী ওয়া মা’আশী ওয়া আক্বিবাতি আমরী (অথবা বলবে: আ’ জিলি আমরি ওয়া আজিলিহি) ফাকদিরহু লী, ওয়া-য়াসসিরহু লী, সুম্মা বা-রিকলী ফীহি, ওয়া ইন কুনতা তা’লামু আন্না হাযাল আমরা (এখানে নিজের কাজের কথা উল্লেখ করবে) শাররুল্লী ফী দীনী ওয়া মা’আশী ওয়াআকী¡বাতি আমরী (অথবা বলবে: আ জিলি আমরী ওয়া আজিলীহি) ফাসরিফহু আন্নী ওয়াসরীফনী আনহু ওয়াকদির লিয়াল খাইরা হাইসু কানা সুম্মা আরদিনী বিহী। (এর পর নিজের কাজের কথা উল্লেখ করবে)

পড়ুন – দোয়া মাসুরা বাংলা উচ্চারণ ও অর্থ

পড়ুন- আয়াতুল কুরসী বাংলা উচ্চারণ ও অর্থ

পড়ুন- সব নামাজের নিয়ম ও নিয়ত 

লেখকঃ
হাফেজ মাওলানা দীদার মাহদী
ভাইস প্রিন্সিপ্যাল,
দারুলহুদা মডেল মাদরাসা
কোদালপুর, গোসাইরহাট, শরীয়তপুর ৷